দেশের সংবাদ

সিলেট শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে র‌্যাগিংয়ের অপরাধে ৫ শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার

র‌্যাগিংয়ের দায়ে সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঁচ ছাত্রকে বহিষ্কার করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সভায় তাদের বহিষ্কার করা হয় বলে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মো. ইশফাকুল হোসেন জানায়।

এছাড়া আরও ১৬ জনকে জরিমানা ও সতর্ক করা হয়েছে।

এদের মধ্যে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষ প্রথম সেমিস্টারের শিক্ষার্থী আশিক আহমেদ হিমেল ও হামিদুর রহমান রঞ্জনকে আজীবন, হাম্মাদুল হাসান ও শাহরিয়ার জামানকে দুই বছরের জন্য এবং ইশতিয়াক আহমেদকে এক বছরের জন্য বহিষ্কার করা হয়েছে।

একইসঙ্গে হাম্মাদুল, শাহরিয়ার ও ইশতিয়াককে ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে।

এছাড়া একই বিভাগের বাবলু মারমা, আদ্রী দাস, আবু রেদওয়ান খান, ওমর আলম সরকার এবং রনি সরকারকে ছয় হাজার টাকা এবং আহমেদ হাসিব, দেবাশীষ বসু, মাহবুব ইব্রাহীম, মো. শহীদুল আলম, মো. আল আমিন, দীপ্ত তরু, আশিকুল এনাম, রাইসুল বারী সাদাত ও সজিবুর রহমানকে তিন হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে।

আর একই ব্যাচের নাজমুস সাকিব ও শরিফুল ইসলামকে সতর্ক করা হয়েছে বলে জানায় রেজিস্ট্রার।

গত ১৫ ফেব্রুয়ারি সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স বিভাগের নতুন সেশনে ভর্তি হওয়া ছয় শিক্ষার্থীকে বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশের একটি মেসে নিয়ে র‌্যাগিং ও মারধর করে একই বিভাগের উপরের ক্লাসের কয়েকজন শিক্ষার্থী।

ওই সময় প্রক্টর জহীর উদ্দিন আহমেদ বলেছিল, র‌্যাগিংয়েরর শিকার শিক্ষার্থীদের নগ্ন করে ছবি তুলে ফেইসবুকে পোস্ট করতে বাধ্য করে ওই শিক্ষার্থীরা।

এ ঘটনার তদন্তে প্রক্টরকে প্রধান এবং সহকারী প্রক্টর সাইফুল ইসলাম আমীন ও শাহপরান হলের প্রভোস্ট শাহেদুল হোসাইনকে নিয়ে ২০ ফেব্রুয়ারি তিন সদস্যের একটি কমিটি করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

এ বিষয়ে রেজিস্ট্রার বলেছে, র‌্যাগিংয়ে ঘটনায় জড়িত থাকায় তদন্ত কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে বিভিন্ন মেয়াদে তাদের বহিষ্কার ও সাজা দেওয়া হয়েছে।

প্রক্টর বলেছে, প্রতিবেদনে সাজাপ্রাপ্তরা ঘটনার সঙ্গে জড়িত ছিল প্রমাণ হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ ও শৃঙ্খলা রক্ষার্থে সিন্ডিকেটের সদস্যদের মতামতের ভিত্তিতে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৬-১৭ সেশনের ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির দায়ে ছাত্রলীগ কর্মী ফুড ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টি টেকনোলজি বিভাগের শিক্ষার্থী আল আমিনকে এবং সহপাঠীকে ছুরিকাঘাত করে আহত করা এবং হত্যার হুমকি দেওয়ায় কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১২-১৩ সেশনের শিক্ষার্থী রাসেল পারভেজকে আজীবন বহিষ্কার করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

এদিকে দুই শিক্ষার্থীকে আজীবন বহিষ্কারের প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয়ের গোল চত্বরে অবস্থান নিয়েছে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স বিভাগের শিক্ষার্থীরা। অবস্থান কর্মসূচির কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মকর্তা ও শিক্ষার্থীদের পরিবহন বাস বন্ধ রয়েছে।

এ বিষয়ে প্রক্টক বলেছে, অপরাধীদের বিচার হয়েছে এটা পজিটিভি দিক। অথচ শিক্ষার্থীরা সেটা না দেখে রাস্তা আটকে আন্দোলন করছে।

“আমরা তো অপরাধীদের লালন করতে পারি না।”

Back to top button