ব্রেকিং নিউজ

ডিম খাওয়ার উপকারীতা

সুস্বাস্থ:আধুনিক জীবনযাত্রা ও খাওয়াদাওয়ার অনিয়মের জেরে শরীরে বাসা বাঁধে নানা অসুখ। আর তার হাত ধরেই হয় নানা খাওয়াদাওয়া। ডায়াবেটিস, কোলেস্টেরল, থাইরয়েড, ওবেসিটি, পলিসিস্টিক ওভারি জীবনযাপনের দোষে তৈরি হওয়া এ সব রোগের কারণে খাবার প্লেট থেকে বাদ হয়ে যায় অনেক প্রিয় খাবারদাবার। অথচ গুড কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়ায় ডিমের কুসুম।

এই যেমন ডিম। কোলেস্টেরলের ভয়ে অনেকেই বাদ দেন ডিমের কুসুম। নব্বইয়ের দশকে আমেরিকান হেলথ সেন্টারের একটি গবেষণা নাড়িয়ে দিয়েছিল সমস্ত চিকিত্সক মহলকে। তখনই জানা যায়, হার্টের অসুখ ও কোলেস্টেরল বাড়ানোর কলকাঠি নাড়ে ডিমের কুসুম। একটি মাঝারি মাপের ডিম থেকে প্রায় ১৪৫-১৫০ মিলিগ্রাম কোলেস্টেরল পাওয়া যায়। তার পর থেকেই পাত থেকে ডিমের কুসুম উধাও করতে শুরু করলেন স্বাস্থ্যসচেতন মানুষ।

পুষ্টিবিদ ও জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ সুবর্ণ গোস্বামীর মতে, ডিমের মোট দু’টি অংশ। সাদা অংশ বা অন্ডিতে থাকে প্রোটিনের ভাগ আর কুসুমে কোলেস্টেরল, ভিটামিন বি এবং ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড। এগুলো সবই আমাদের নানা জৈবিক কাজে ব্যবহূত হয়। কোলেস্টেরলেরও কিছু প্রয়োজনীয় কাজ থাকে। যেমন, পিত্তে উপস্থিত অ্যাসিড তৈরিতে একটি বিশেষ ভূমিকা পালন করে এটি। এ ছাড়া ভিটামিন ডি-র জোগান দিতে কাজে আসে কোলেস্টেরল। নানা যৌন হরমোন ক্ষরণেও ডিমের কুসুম সাহায্য করে। বরং ঠিকঠাক কোলেস্টেরলের জোগান না পেলে শরীর নিজেই তা বানিয়ে নিতে বাধ্য হয়। তাই গুড কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়ায় ডিমের কুসুম।

তবে বেশি নয়, দিনে দু’টি ডিম কুসুমসমেত খান। কিন্তু সংখ্যাটা তার বেশি হলে খান সাদা অংশই। কারণ কোলেস্টেরলের আধিক্যও শরীরের জন্য ভালো নয়। তাই পাতে কুসুমসহ ডিম রাখতেই পারেন দু’টি। তা বলে আবার তেলে ভেজে বা মাখনে বেক করে ডিম খাবেন না। চেষ্টা করুন সিদ্ধ ডিমই খেতে। তেল-মসলা থেকে বরং দূরে থাকুন। বাদ দিন ভাজাভুজি, ফাস্ট ফুড। এতেই কমবে কোলেস্টেরলের ভয়।

Spread the love

Related posts