অর্থ-বাণিজ্য

বাজারে কাঁচা আম, কেজি ১৮০ টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজধানীর বাজারগুলোতে আসতে শুরু করেছে কাঁচা আম। বাজারে নতুন আসা এ মৌসুমী ফলের প্রতি ক্রেতাদের বাড়তি আকর্ষণ রয়েছে। ফলে দামও বেশ চড়া। মানভেদে কেজিপ্রতি কাঁচা আম বিক্রি হচ্ছে ১৫০ থেকে ১৮০ টাকায়।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, রাজধানীর বাজারগুলোতে সাধারণত এপ্রিল মাসের শুরু থেকে কাঁচা আম আসতে শুরু করে। এবার একটু আগে আগেই বাজারে কাঁচা আম চলে এসেছে। এ কারণে অন্যান্য বছরের তুলনায় দামও একটু বেশি।

তারা বলছেন, বাজারে যে জিনিসই নতুন আসুক তার প্রতি ক্রেতাদের আগ্রহ একটু বেশি থাকে। কাঁচা আমের প্রতিও এখন ক্রেতাদের বেশ আগ্রহ রয়েছে। তবে চাহিদার তুলনায় সরবরাহ বেশ কম। দাম বেশি হওয়ার এটিও একটি অন্যতম কারণ।

তারা আরও বলছেন, রাজধানীর বাইরে থেকে আসা এ আম আগাম জাতের। বাড়তি দাম পাওয়ার আশায় আঁটি হওয়ার আগেই এসব আম পেড়ে বাজারে বিক্রি শুরু করা হয়। বৈশাখের পরপরই বাজারে কাঁচা আমের সরবরাহ বেড়ে যাবে, তখন দামও কমবে।

মঙ্গলবার (৩০ মার্চ) খিলগাঁও তালতলা বাজারে গিয়ে দেখা যায়, ব্যবসায়ীরা কাঁচা আমের কেজি ১৮০ টাকায় বিক্রি করছেন। তবে দামাদামি করলে কোনো কোনো বিক্রেতা ১৬০ টাকা কেজিতেও বিক্রি করছেন।

কাঁচা আমের বিক্রেতা শরিফ বলেন, এখন বাজারে যে কাঁচা আম পাওয়া যাচ্ছে তা সবার জন্য না। এক শ্রেণির ক্রেতা শখ করে এই আম কিনছেন। এদের বেশিরভাগই ডাল দিয়ে রান্না করে খাওয়ার জন্য এই আম নিচ্ছেন।

তিনি বলেন, এখন বাজারে যে আম পাওয়া যাচ্ছে তা কাঁচা বিক্রির জন্যই চাষ করা হয়। কিছুদিন পরেই সব ধরনের কাঁচা আম বাজারে আসতে শুরু করবে, তখন দামও কমবে। আমাদের ধারণা পহেলা বৈশাখের পর পরই বাজারে কাঁচা আমের সরবরাহ বেড়ে যাবে।

রামপুরা বাজারে কাঁচা আমের বিক্রেতা মনির বলেন, কাঁচা আম সব কাজের কাজি। আচার, শরবত, ডাল রান্নাসহ অনেক ক্ষেত্রেই এটা ব্যবহার করা হয়। তবে এখন বেশিরভাগই ডাল রান্নার জন্য কাঁচা আম কিনছেন। আচারের কাঁচা আম আরও কিছুদিন পর পাওয়া যাবে। তখন এক কেজি কাঁচা আম ১৫-৩০ টাকায় বিক্রি হবে।

মালিবাগ হাজীপাড়া বউ বাজারে ১৫০ টাকা কেজি কাঁচা আম বিক্রি করছিলেন হায়দার। তিনি বলেন, শুক্রবার ৪ কেজি আম এনেছিলাম। এখনও এক কেজির বেশি রয়ে গেছে। দাম বেশি হওয়ায় বিক্রি কম। বেশিরভাগ ক্রেতাই একটা-দুইটা করে কিনছেন। দাম কমলে তখন কেজি কেজি কাঁচা আম বিক্রি হবে।

তিনি বলেন, এই বাজারের বেশিরভাগ ক্রেতা নিম্নআয়ের মানুষ। সবাই সস্তার জিনিস খোঁজে। কিন্তু যে দামে এই কাঁচা আম কিনে এনেছি, তাতে ১৫০ টাকার নিচে বিক্রি করা সম্ভব না।

হাজীপাড়া বউ বাজারে কাঁচা আমের দাম শুনে কিছুটা হতাশ হয়ে ফিরে যাওয়া আমেনা বেগম বলেন, ডাল দিয়ে রান্না করে খাব বলে দুটা আম কিনতে চেয়েছিলাম। কিন্তু যে দাম তাতে আমাদের পক্ষে এখন কাঁচা আম খাওয়া সম্ভব না। যাদের টাকা আছে এটা এখন তাদের জন্য। কয়দিন পরেই দাম কমলে খাব।

গরমে কাঁচা আম এবং এর শরবত দুটোই স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। এতে আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ এবং সি, ক্যালশিয়াম ও আয়রন। এটা ম্যাগনেসিয়ামেরও ভালো উৎস। যা শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ বের করে দিতে সাহায্য করে। কাঁচা আম হজম এবং ত্বক ভালো রাখতে সাহায্য করে।

Back to top button