জাতীয়

প্রেসিডেন্টের মৃত্যু: আমিরাতে প্রাইভেট প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে ৩দিন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রেসিডেন্ট বিন জায়েদ আল নাহিয়ানের মৃত্যুতে ৪০ দিনের শোক ঘোষণা করা হয়েছে। শোক পালনের পাশাপাশি দেশটির সরকারি-বেসরকারি সব প্রতিষ্ঠান তিন কার্যদিবস বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছে আমিরাতের প্রেসিডেন্ট কল্যাণবিষয়ক মন্ত্রণালয়।

শুক্রবার ৭৩ বছর বয়সে মারা যান আমিরাতের প্রেসিডেন্ট শেখ খলিফা। তার মৃত্যুর পর মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে শোক পালন ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বন্ধের ঘোষণা দেওয়া হয়।

দেশটির রাষ্ট্রায়ত্ত সংবাদ সংস্থা ওয়ামের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, শোক পালনের সময় দেশের সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা অর্ধ-নমিত রাখা হবে। এছাড়া ফেডারেল ও স্থানীয় সব সরকারি কার্যালয়, মন্ত্রণালয় এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম শুক্রবার (১৩ মে) থেকে শুরু করে আগামী তিন দিনের জন্য স্থগিত থাকবে।

প্রেসিডেন্ট শেখ খলিফা বিন জায়েদ আল নাহিয়ান বেশ কয়েক বছর ধরে নানা ধরনের শারীরিক অসুস্থতায় ভুগছিলেন। যে কারণে দীর্ঘদিন ধরে সরকারি কর্মকাণ্ড থেকে দূরে ছিলেন তিনি। প্রেসিডেন্টের মৃত্যুতে তার ভাই ও আবু ধাবির ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন জায়েদ আমিরাতের ডি-ফ্যাক্টো শাসক হতে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে তার উত্তরসূরীর ব্যাপারে তাৎক্ষণিকভাবে আনুষ্ঠানিক কোনও ঘোষণা দেওয়া হয়নি।

২০০৪ সালে আমিরাতের প্রথম প্রেসিডেন্ট শেখ জায়েদ বিন সুলতান আল নাহিয়ানের মৃত্যুর পর তার ছেলে শেখ খলিফা বিন জায়েদ আল নাহিয়ান প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নেন। এর এক দশক পর তিনি স্ট্রোকের শিকার হন, তখন থেকেই তাকে জনসম্মুখে খুব বেশি দেখা যায়নি।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইয়ে অবস্থিত বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু টাওয়ারটির নাম প্রয়াত শাসকের নামে বুর্জ খলিফা রাখা হয়। শেখ খলিফা সংযুক্ত আরব আমিরাতের দ্বিতীয় প্রেসিডেন্ট এবং আবু ধাবির ১৬তম শাসক ছিলেন।

১৯৪৮ সালের ৭ সেপ্টেম্বর আমিরাতের আল মুওয়াইজি ফোর্টে জন্মগ্রহণ করেন শেখ খলিফা। আমিরাতের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রথম প্রেসিডেন্ট শেখ জায়েদ বিন সুলতান আল নাহিয়ানের জ্যেষ্ঠ পূত্র ছিলেন তিনি।

 

Back to top button