জাতীয়

রোহিঙ্গাদের অপরাধে জড়াতে বাধ্য করা হছে!

কক্সবাজার সংবাদদাতা: কক্সবাজারের উখিয়া কুতুপালং ক্যাম্প-৪ এর উঠতি বয়সী সাধারণ রোহিঙ্গাদের তালিকা নিয়ে জোর পূর্বক অপরাধ কর্মকা-ে বাধ্য করছে আল-ইয়াকিন সদস্যরা। কেউ অবাধ্য হলে টর্চার করা হছে এমনকি খুন পর্যন্ত করা হয়। যার ফলে দিন দিন স্বজন হারাছে সাধারণ রোহিঙ্গারা। নাম প্রকাশে অনিছুক রোহিঙ্গারা জানিয়েছে এসব তথ্য।

সূত্রে জানা গেছে, মংডু ওয়ালিদং এলাকার বাসিন্দা বর্তমানে ক্যাম্প-৪ এ অবস্থানরত সক্রিয় আল-ইয়াকিন সদস্যরা ক্যাম্প কেন্দ্রিক হত্যাকা-, সন্ত্রাসী কার্যকলাপসহ সব ধরণের অপরাধ কর্মকা- চালিয়ে যাছে। এরা হছে ইতোপূর্বে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে অস্ত্রসহ আটক কমান্ডার আবুল কালামের বাহিনীর সদস্য। এছাড়াও ক্যাম্প গুলোতে এধরণের অসংখ্য বাহিনী রয়েছে যাদের সাথে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ সংশ্লিষ্টতা আছে হেড মাঝিদের। এমন তথ্যও তিনি নিশ্চিত করেছে সূত্র।

সূত্র আরও জানায়, এসব আল-ইয়াকিন সদস্যদের অপরাধ কর্মকা-ে সামিল না হলে মেরে ফেলা হয় সাধারণ রোহিঙ্গাদের। ক্যাম্প-৭ এর ‘নৌকা ফিল্ড’ নামক একটি স্থানে নিয়ে গিয়ে টর্চার করা হয়। কিছুদিন পূর্বেও ক্যাম্প-১৭ থেকে মোহাম্মদ আলম (৪০) নামে একজনকে হত্যা করা হয়। যা কোন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়নি।

এছাড়াও আল-ইয়াকিন সদস্যরা দেশ উদ্ধারের কথা বলে রাতের আঁধারে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে উঠতি বয়সীদের নিয়ে গেলেও বৌদ্ধ মগদের সাথে যুক্ত হয়ে রাখাইন থেকে ইয়াবা নিয়ে আসে প্রতিনিয়ত। ওই সময় কখনো কখনো মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষীর সাথে মুখোমুখি হলে উঠতি বয়সীদের সামনে ঠেলে দিয়ে আল-ইয়াকিন সদস্যরা মগদের সহযোগিতায় পালিয়ে আসতে সক্ষম হয়। এদিকে ক্যাম্পের পরিবেশ শান্ত রাখতে এ ধরনের চিহ্নিত অপরাধীদের আইনের আওতায় আনার জোর দাবি জানিয়েছে ঋণক্তভোগী রোহিঙ্গারা। যাদের অধিকাংশই প্রাণভয়ে প্রকাশ্যে মুখ খুলতে চায় না।

Back to top button
Close
Close