পাঁচমিশালি

যে শহরের বাসিন্দারা গুহায় বাস করে!

নিউজ ডেস্ক: শহরের মানুষ কি-না বাস করে গুহায়! অতীতে বাসস্থানের অভাবে মানুষ গুহায় বসবাস করত, তা সবারই জানা। তবে আধুনিক এ সময়ে এখন গুহায় থাকার কথা মানুষ কল্পনাও করতে পারে না।

সেখানে কি-না একটি শহর গড়ে উঠেছে, যেখানে সবাই বাস করে গুহায়। ২০০৪ সালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, মাতমাতার জনসংখা প্রায় ৩ হাজার। ১৯৬০-১৯৭০ সালের মধ্যে তীব্র বন্যার কারণেই শহরের বেশিরভাগ মানুষই তাদের আবাসস্থল হারিয়ে ফেলেন। এরপরই তারা ভূ-গর্ভে থাকার গুহা তৈরির মাধ্যমে বসবাস শুরু করে।

তিউনিসিয়ার মাতমাতা মূলত মরুভূমি এলাকা। সেখানকার জনবসতিগুলো তীব্র উত্তাপ এবং প্রবল মরু বায়ু এড়াতে ভূগ-গর্ভস্থ বাড়িতে বসবাস করে। এ ঘরগুলো প্রায় ৭ মিটার (২৩ ফুট) গভীর এবং ১০ মিটার (৩৩ ফুট) প্রশস্ত। মরুভূমি এলাকা হওয়ায় হাতের সরঞ্জাম দিয়েই খনন করা হয় গুহার ঘরগুলো। বহু শতাব্দী ধরেই সেখানকার গুহায় জনবসতি গড়ে উঠেছে।

এ বাড়িগুলো একটি কেন্দ্রীয় উঠোনের চারপাশে সারিবদ্ধভাবে তৈরি করা হয়। অন্যান্য বাড়ির আঙ্গিনাগুলোও সংযুক্ত। গুহায় ঢুকলে ভূ-গর্ভস্থ ঘরগুলো গোলকধাঁধায় পরিণত হয়। অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে গুহার ঘর, সিঁড়ি তৈরি করা হয়। গুহার উঠোন বা আঙিনার মাধ্যমেই পর্যাপ্ত সূর্যের আলো পায় বাসিন্দারা।

মাতমাতার এ ভূ-গর্ভস্থ বাড়িগুলোতে অত্যাধুনিক সব সুযোগ-সুবিধা আছে। এ বাড়িগুলো অনেক সুন্দর করে সাজানো-গোছানো থাকে। সবাই তাদের উঠোনে বাগান করে। সেখানে নানা রঙের ফুল ও গাছ-পালা বাড়ির সৌন্দর্য বহুগুণে বাড়িয়ে দেয়। এই গুহাগুলোর নির্মাণ বৈচিত্রতা পর্যটকদের একটি প্রধান আকর্ষণ।

Back to top button