জাতীয়

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের ক্ষতি: শিক্ষার্থীদের মাঝে বাড়ছে অনলাইন আসক্তি

নিজস্ব প্রতিবেদক: টানা এক বছরেরও বেশি সময় ধরে সরকার বন্ধ করে রেখেছে দেশের স্কুল, কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়সহ সবধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। গুটিকতক প্রতিষ্ঠান অনলাইনে কিছু কার্যক্রম পরিচালনা করলেও বেশিরভাগ সময়েই অবসর সময় পার করছে শিক্ষার্থীরা।

আর এই অবসরে বিভিন্ন ধরণের অনলাইন প্ল্যাটফর্মে অশ্লীলতা ও গেমে আসক্ত হয়ে পড়ছে তারা।

গেল বছরের মার্চে বন্ধ ঘোষণা করা হয় সবধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। সেই এখন পর্যন্ত এখন পর্যন্ত বন্ধই আছে সেগুলো। কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অনলাইনে কার্যক্রম পরিচালনা করলেও সেটাও দিনের একটি নির্দিষ্ট ও স্বল্প সময়। সর্বশেষ সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার নির্দেশনা দেওয়া আছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শারীরিক উপস্থিতির সুযোগ না থাকায় অবসরে একরকম অলস সময় পার করতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। একই সাথে অন্যান্য সহপাঠী বা বন্ধুদের সাথে যোগাযোগ কমে যাওয়ায় শিক্ষার্থীরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পরিবেশে স্বাভাবিক অন্যান্য সহ-পাঠ্যক্রমের কাজগুলো করতে পারছেন না।

এই সুযোগে শিক্ষার্থীরা ঝুঁকছে বিভিন্ন অনলাইন প্ল্যাটফর্মে। একটি সমীক্ষা বলছে, বন্ধের এই সময়ে এসব প্ল্যাটফর্মে ব্যবহারকারীর সংখ্যা তিনগুণ হারে বৃদ্ধি পেয়েছে।
একই সাথে বিশ্বজুড়ে ভিডিও কন্টেন্ট নির্মাতা বাড়াতে অনলাইন অ্যাপসগুলোতেও নানান অফারও দিয়ে আসছে। আর সেসব অফারে থাকছে নগদ অর্থ উপার্জনের সুযোগ। এছাড়াও সময় কাটানো, বিনোদনের এবং অর্থ আয়ের পাশাপাশি এসব প্ল্যাটফর্মে চলে ভার্চুয়াল খ্যাতি অর্জনের এক অশুভ প্রতিযোগিতা।

রাজধানীর মিরপুরের এক অভিবাবক তার ১২ বছর বয়সী সন্তানকে নিয়ে বলেন, স্কুল খোলা থাকলে আগে পড়াশুনা করতো কিন্তু লকডাউনের কারণে সময় কাটানোর জন্য ইউটিউবে ভিডিও দেখতো। এছাড়াও অনলাইন ক্লাসের কারণে স্মার্ট ডিভাইস দিতে হয়েছে সন্তানকে। এখন দেখি সে নিজেই কনটেন্ট বানায়। শুরুতে কয়েকদিন রান্না করলো এখন দেখি ডান্স ভিডিও বানায়। নিষেধ করলে বলে সারাদিন ঘরে করবো কি? স্কুল খুলে দিলেই ভালো হয়।

অনলাইনে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি বাড়ার পেছনে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকা একটি কারণ বলে মনে করেন জাতীয় কারিগরি কমিটির সদস্য ও মনরোগ বিশেষজ্ঞ ড. মোহিত কামাল। তিনি বলেন, এটা সত্য যে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের মাঝে ইউটিউব, টিকটক এসবে উপস্থিতি বেড়েছে। আমরাই শিক্ষার্থীদের স্মার্ট ডিভাইস দিয়েছি হয়তো ক্লাস করার জন্য। কিন্তু তাদের একটি অংশ সেখানে ইউটিউবে যাচ্ছে, ফেসবুকে যাচ্ছে, এমনকি পর্নো সাইটেও যাচ্ছে।

Back to top button