আন্তর্জাতিক

রাশিয়া-পোল্যান্ডের মধ্যে তীব্র উত্তেজনা : জরুরি বৈঠক ডেকেছে ন্যাটো ও জি৭ জোট

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: পোল্যান্ড সীমান্তে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার বিষয়ে ‘পরবর্তী করণীয়’ ঠিক করতে ফোনে কথা বলেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও পোলিশ প্রেসিডেন্ট আন্দ্রেজ দুদা। এ ঘটনায় জরুরি বৈঠক ডেকেছে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন সামরিক জোট ন্যাটো ও শিল্পোন্নত গণতান্ত্রিক দেশগুলোর জোট জি৭।

গতকাল মঙ্গলবার ইউক্রেন সীমান্তবর্তী পোল্যান্ডের একটি গ্রামে বিস্ফোরণে দুজন নিহত হন। রাশিয়ার ছোড়া ক্ষেপণাস্ত্র লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে এ বিস্ফোরণ ঘটেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখছে ন্যাটো মিত্ররা। এ নিয়ে রাশিয়া-পোল্যান্ডের মধ্যে তীব্র উত্তেজনা দেখা দিয়েছে।

গতকাল হোয়াইট হাউস জানিয়েছে, এ ঘটনায় পরবর্তী করণীয় নিয়ে পোলিশ প্রেসিডেন্টের সঙ্গে ফোনে কথা বলেছেন বাইডেন। দুজনে বলেন, ‘তদন্ত এগিয়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে উপযুক্ত পরবর্তী পদক্ষেপ নির্ধারণে তাঁদের এবং তাঁদের দলগুলোর ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ রেখে চলা উচিত।’

এদিকে, পোল্যান্ডে প্রাণঘাতী বিস্ফোরণের ঘটনায় আজ বুধবার জোটের সদস্যদের সঙ্গে জরুরি বৈঠক করবেন ন্যাটোপ্রধান জেনস স্টলটেনবার্গ। মঙ্গলবার ন্যাটোর মুখপাত্র ওয়ানা লুঙ্গেসকু এসব কথা জানান। তিনি বলেন, মর্মান্তিক এ ঘটনার বিষয়ে আলোচনা করতে ন্যাটো সদস্যদেশগুলোর দূতদের জরুরি এক সভায় সভাপতিত্ব করবেন মহাসচিব স্টলটেনবার্গ।

পোল্যান্ডে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপের ঘটনায় আজ জরুরি বৈঠক ডেকেছে শিল্পোন্নত গণতান্ত্রিক দেশগুলোর জোট জি৭। এই জোটের দেশগুলো হলো—কানাডা, ফ্রান্স, জার্মানি, ইতালি, জাপান, যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্র।

সীমান্তে বিস্ফোরণের বিষয়ে এক বিবৃতিতে পোল্যান্ডের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, স্থানীয় সময় বিকেল ৩টা ৪০ মিনিটের দিকে দেশটির ভূখণ্ডে ‘রাশিয়ার তৈরি ক্ষেপণাস্ত্র’ এসে পড়ে। এতে সীমান্তবর্তী একটি গ্রামে দুজন নিহত হন। তবে বিবৃতিতে কোন দেশ ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছে, সে বিষয়ে কিছু বলা হয়নি।

সূত্র: এএফপি, বিবিসি

Back to top button